ভিন্ন রকমের মাদকের সন্ধান

0

ডেস্ক রিপোর্ট: দেশজুড়ে বিভিন্ন রকম মাদকের ছড়াছড়ি হলেও দেশে এ প্রথম নতুন মাদকের সন্ধান মিলেছে। এলএসডির (লাইসার্জিক অ্যাসিড ডাইথ্যালামাইড) নামের এ মাদকের ভয়াবহতা অন্যান্য মাদকের চেয়ে কয়েকগুন বেশী। সংশ্লিষ্টরা বলছেন আশির দশকের প্রথম দিকে এমন মাদকের সন্ধান পাওয়া গেলেও পরবর্তীতে দীর্ঘ সময়ের পর আবারও আলোচনায় আসে এটি। পুলিশ বলছে, উচ্চবিত্তদের তরুণ-তরুণীরাই এ মাদক সাধারণত সেবন করে থাকে। মাদকটি সেবনে দুই ধরণের প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়, একটি সেবনকারীকে সাময়িক আনন্দ দেয় অন্যটি হ্যালুসিনেশন ও ইলুনেশন দুইটাই তৈরি হয়। আর হ্যালুসিনেশনটা যখন দীর্ঘায়িত হয় তখন সৃষ্টি হয় বড় সমস্যা। এমনকি ব্যক্তি পাগল পর্যন্ত হয়ে যায়। চিকিৎসকরা বলছে মাদকটি অতিমাত্রায় গ্রহণে অনেক সুইসাইড পর্যন্ত করে বসে। এলএসডি কী? যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্য বিভাগের অধীনস্থ মাদক বিষয়ক গবেষণা সংস্থা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ড্রাগ অ্যাবিউজের তথ্য অনুযায়ী, ডি-লাইসার্জিক অ্যাসিড ডায়েথিলামাইড বা এলএসডি রাসায়নিক সংশ্লেষণের মাধ্যমে তৈরি একটি পদার্থ যা বিভিন্ন ধরণের শস্যের গায়ে জন্মানো এক বিশেষ ধরণের ছত্রাকের শরীরের লাইসার্জিক অ্যাসিড থেকে তৈরি করা হয়। এটি স্বচ্ছ, গন্ধহীন একটি পদার্থ। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল লাইব্রেরি অব মেডিসিনের মতে এটি পাউডার, তরল, ট্যাবলেট বা ক্যাপসুলের আকারে পাওয়া যায়। এলএসডিকে ‘সাইকাডেলিক’ মাদক হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এই ধরণের মাদকের প্রভাবে সাধারণত মানুষ নিজের আশেপাশের বাস্তবতাকে ভিন্নভাবে অনুভব করে এবং কখনো কখনো ‘হ্যালুসিনেট’ বা অলীক বস্তু প্রত্যক্ষও করে থাকে।  ডিবি বলছে, এই মাদকগুলোর ছদ্মনাম গউগঅ, ঘ, গ-উরসবঃযুষঃৎুঢ়ঃধহরধ, ঢ়ংরষড়পুনরহ সঁংযৎড়ড়স সহ খঝউ-২৫, অপরফ, উবষুংরফ ইত্যাদি নামের হয়ে থাকে। নতুন এ মাদক প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত যুগ্ম কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার ইত্তেফাক অনলাইনকে বলেন, আশির দশকের প্রথম দিকে এ এলএসডি মাদকদ্রব্যটির প্রচলন হয়েছিল। সারা পৃথিবীতে এ মাদকদ্রব্যটি অবৈধ এবং নিষিদ্ধ। এ মাদকটি খুবই ছোট আকারের। এটি গ্রহণের পর সেবনকারী এক ধরণের কল্পনার জগতে চলে যায়। তবে এ মাদক গ্রহণে দুই ধরণের প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়, একটি হলো সাময়িকের জন্য আনন্দ পাওয়া যায় আবার আরেকটা দিক হলো হ্যালুসিনেশন, যার কারণে গ্রহণকারী কলল্পনার জগতে থাকবে সারাক্ষণ। আবার এর ফলে ইলিউশন হয় যেটি হ্যালুসিনেশন থেকে আলাদা একটি বিষয়। আপনি যেটি দেখছেন মূল বস্ত্রটি আসলে সেটা নয়। যেমন সামনে একটি রশি পরে আছে কিংবা ঝুলে আছে কিন্তু গ্রহণকারী সেটাকে সাপ ভাবছেন এবং চোখে সাপ দেখছেন। ফলে এ মাদক গ্রহণে বিভিন্ন রকম খারাপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। এ মাদক গ্রহনে হ্যালুসিনেশন যদি কোন কোন ব্যাক্তির জীবনে দীর্ঘায়িত হয় তাহলে মারাত্মক আকার ধারণ করবে এবং মানসিক রোগী ব্যাক্তি পাগল হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। পুলিশের গোয়েন্দা এ কর্মকর্তা আরও বলেন, এ সকল মাদক বিপনণ, গ্রহণ এবং ক্রয় তিনটির যে কোনও একটির সঙ্গে জড়িত এমন কোন তথ্য পাওয়া গেলে সঙ্গে সঙ্গে আইন অনুযায়ী দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। একইসঙ্গে যারা কোন মাদক গ্রহণ করে না এবং তাদের কাছে তথ্য আছে যেসব তরুণ-তরুণীরা এসব মাদক গ্রহণ করছে এমন কোন তথ্য থাকলে আমাদেরকে দ্রুত জানানোর জন্য অনুরোধ করবো। বিশেষ করে অবিভাবকের এ বিষয়ে সর্তক থাকতে হবে। যেন ছেলেমেয়ারা মাদক গ্রহণ থেকে বিরত থাকে। এদিকে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক (ঢাকা গোয়েন্দা) মো. শামিম আহম্মেদ ইত্তেফাক অনলাইনকে বলেন, ২০১৯ সালের জুলাই মাসের ১৫ তারিখে রাজধানীর কাফরুল থানায় একটা মামলা হয়েছিল যার মামলা নং ২১। যেখানে এলএসডির ৪৬টি স্ট্রিকসহ দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। এ মামলটির তদন্ত শেষে ইতিমধ্যে চার্জশিট জমা দেওয়া হয়ে গেছে। এর পরে সর্বশেষ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হাফিজুর রহমানের মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে নতুন করে আবার সামনে আসলো এ মাদকদ্রব্যটি।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.